সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন

ফারাজি মুন্সির দরবার ৩৩তম অধিবেশন

দিগন্ত ডেস্ক / ১০৬ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লা। প্রিয় সাথী বন্ধুরা, প্রশ্ন নিয়ে অপেক্ষায় আছ। প্রশ্ন নিয়েই মানুষের জীবন ভরা। জীবন নিয়ে মানুষের চিন্তার শেষ নেই। চিন্তাই প্রশ্ন টেনে আনে। তোমাদের প্রশ্ন শুনে মনে হয় জীবনটা কত জটিল! আসলে জীবনটা জটিল নয়। মানুষ তা হস্তক্ষেপ করে জটিল বানিয়ে নিয়েছে। যিনি মানুষকে তৈরী করেছেন তিনিই সরল গতি পথও দিয়েছেন।

মানুষের স্বভাবই হচ্ছে বাঁকা পথে হাটা। এজন্যে প্রশ্নের সৃষ্টি। এবার এসো প্রশ্নোত্তরের কাছে।
প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম জনাব ফারাজী মুন্সী সাহেব। দাম্পত্য জীবন শুরু করবো। স্বামী-স্ত্রী হক কিভাবে কি করলে আদায় হবে আপনার দরবারে এর কোন তাবীজ-কবজ আছে কি?

উত্তরঃ তাবিজ কবজ তো আছে কিন্তু তুমি পুরুষ না মহিলা তা জানাও নাই। তাবিজ কবজ পুরুষের এক রকম, নারীর জন্যে অন্য রকম। কোনটা দেব ? যদি উলোট পালট হয়ে যায় তবে এ্যাকশন বিপরীত মুখী হতে পারে।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। মুন্সী সাহেব বিয়ে করলেতো চরিত্র ঠিক থাকে। দাদা-দাদীদের মুখে শুনেছি ব্রিটিশ,পাকিস্তান আমলে অল্প বয়সেই ছেলে-মেয়েদের বিয়ে হতো। এখন আর ওই বিবাহের প্রচলন নেই। অল্প বয়সের বিয়ে শরিয়তে কোন বিধি-নিষেধ আছে কি? হাফিজুল ইসলাম হাফিজ, কলেজ ছাত্র, খোকসা।

উত্তরঃ না। শরিয়াতে কোন বিধি নিষেধ নেই। রসুল (সাঃ) মা আয়েশা (রাঃ)কে যখন বিয়ে করেছিলেন তখন তার বয়স ছিল ৭ বছর। হাফিজুল, কি ব্যাপার! অল্প বয়সী মেয়ে খোঁজ করছ কেন ? বড় মেয়েদের প্রতি কোন ক্ষোভ আছে নাকি ? বয়স হয়েছে । একটা বড় সড় মেয়েকে বিয়ে করে নাও। ছোট বয়সী মেয়ে বিয়ে করলে সরকারী আইনে খবর আছে।

প্রশ্নঃ ফারাজী মুন্সী সাহেব আচ্ছালামু আলাইকুম। ৫ ওয়াক্ত নামাজ কেন হলো। এর মধ্যে ১৭ রাকাত ফরজ কেন? নামাজের হাকিকত জানতে চায়। ছালামত শাহ,দিনাজপুর।

উত্তরঃ ৫ ওয়াক্ত নামাজ কেন হলো এবং এর মধ্যে ১৭ রাকাত কেন নামাজ ফরজ ? এ প্রশ্নের জবাব আমার কাছে জিজ্ঞেস করছ কেন ? তোমার আমার রব নির্ধারণ করেছেন। কোন প্রশ্ন নেই। যথাযথ পালন করাই বান্দার কাজ। নামাজের হাকিকত হলো, কালিমাতে আল্লাহকে আইনদাতা, বিধানদাতা এবং সাবভৌম ক্ষমতার মালিক হিসাবে মেনে নেয়ার সাথে সাথে নামাযের মাধ্যমে শরীর হৃদয় মন দিয়ে আল্লাহকে বিধানদাতা হিসেবে বাস্তবে মানার ট্রেনিং শুরু করতে হয়। এই ট্রেনিং এর বাস্তব রূপ হলো ব্যক্তি জীবনে, পরিবার, সমাজ, জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় জীবনের সকল ক্ষেত্রে আল্লাহর হুকুম মেনে চলা এবং সামগ্রীক জীবনের বিধান ইসলামের দিকে সকলকে আহবান জানানো।

প্রশ্নঃ মুন্সী সাহেব অনলাইনে আপনার অনেক জমৎকার প্রশ্নোত্তর পড়ছি। অত্যান্ত ভালো লাগছে। কুসংস্কার দূরীকরণে আপনার ভূমিকা অনেক। আমার প্রশ্ন হলো,এক পীর সাহেবের বই পড়ে দেখলাম সেখানে তিনি লিখেছেন যে ব্যক্তি পীর ধরবে তিনি মারা গেলে কবরের ভীতরে মুনকার-নকীরের সওয়াল জওয়াবের উত্তর দিবেন পীর সাহেব। আসলে সঠিক কিনা? আব্দুল্লাহ জায়েদ, মানিকগঞ্জ।

উত্তরঃ আল্লাহর রাসুল(সাঃ) কি কোন হাদিসে এমন কথা জানিয়েছেন ? অথবা নিজে কি কারো কবরে সওয়ালের জবাব দিবার অঙ্গীকার করেছেন ? উপরন্ত আল্লাহর রাসুল (সাঃ) বলেছেন সেদিন তিনি তাঁর পরিবারের সদস্যদের কারো জন্যে কিছুই করতে পারবেন না। তবে আল্লাহ তাঁকে অনুমতিদিলে তিনি কারো জন্যে শাফায়েত করতে পারবেন। যার যার আমল দিয়েই জান্নাতে যেতে হবে। তাহলে পীর সাহেব কি আল্লাহর রাসুল (সাঃ) এর উপরে ? নাউজুবিল্লাহ।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম মুন্সী সাহেব। নারী-পুরুষ মারা গেলে তাদের জন্য যে কবর করা হয়। সেখানে মহিলার জন্য বেশি গর্ত, পুরুষের জন্য কম গর্ত করা হয়। আসলে কবর কী পরিমাণ গভীর করতে হবে? পুরুষ ও মহিলার কবরের মধ্যে কোন পার্থক্য আছে কি? মহিলার কবরের গর্ত বেশি করা হয় কেন জানতে চায়। আয়েশা হামিদ, কলেজ শিক্ষিকা,কালিগঞ্জ।

উত্তরঃ বোন আয়েশা, ভয় পেওনা ? ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই। কবরে মহিলাদের বেশী মাটির নীচে যেতে হবে না। পুরুষ এবং মহিলাদের কবরের কোন তারতম্য নেই। কবর সাধারণত কমপক্ষে একটি মানুষের উচ্চতার অর্ধেক পরিমান গভীর হলেই হবে। তবে এর থেকে আরও একটু বেশী গভীর করাই ভাল। শোন বোন, আল্লাহ কি মহিলাদের অভিশপ্ত করে সৃষ্টি করেছেন যে তার মাটির নীচে যাবে ? নারী-পুরুষ আল্লাহর সৃষ্টিতে সমান । তবে কবর গভীর হোক আর না হোক আসল বিষয় হলো, আমল না থাকলে কোন কাজ হবে না। তোমাকে ধন্যবাদ, তুমি অন্তত: তুমি কবর নিয়ে কিছুটা চিন্তা কর। আমার দরবারের সাথীদের দেখে মনে হয় ওরা কোনদিন কবরে যাবে না।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম মুন্সি সাহেব। আপনার দরবার দেখে খুব ভালো লাগলো। আমার প্রশ্ন চন্দ্র ও সূর্য গ্রহণের সময় পানাহার করা ও স্ত্রী সহবাস করা যাবে কি? চন্দ্র ও সূর্য গ্রহণের কারণ কী?আরিফুজ্জামান,জামালপুর।

উত্তরঃ চন্দ্র সূর্য গ্রহনের সময় পৃথিবীর সাথে চন্দ্রের বা সূর্যের একটা প্রচন্ড আকর্ষন সৃষ্টি হয়। ফলে পৃথিবীর পশু ও প্রাণীর জগতের উপর এর বিরাট একটা প্রভাব পড়ে সাথে সাথে প্রতিক্রিয়া ও দেখা দেয়। ফলে এ সময় তোমার প্রশ্নের উল্লিখিত কাজ গুলি বন্দ রাখার জন্যে রাসুল (সাঃ) নির্দেশ দিয়েছেন। চিকিৎসা বিজ্ঞানও এই উপদেশই দিয়ে থাকে।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। মুন্সী সাহেব আমাদের দেশে একটি কথা আছে নেক সন্তান জন্মের পর ওই পরিবারে সচ্ছলতা আসে আর অনেক সন্তান জন্মের পর সংসারে অশান্তি হলে ওই সন্তানকে কু-সন্তান হিসাবে ধরা হয়। আসলে কি ঠিক? অনেকেই মেয়ে সন্তান হলে বেজার হন। এতে সন্তানের অমঙ্গল হয় কিনা। ফাতিমা বেগম, দৌলতপুর,কুষ্টিয়া।
উত্তরঃ তোমাদের ধারনাটা সঠিক নয়। পরিবারে সচ্ছলতা আর অসচ্ছলতা আল্লাহর ইচ্ছা অনুসারে হয়ে থাকে। আল কোরআনের বর্ণনা থেকে জানা যায় রিজিকের মালিক আল্লাহ। তিনি যাকে ইচ্ছে রিজিক বাড়িয়ে দেন, যাকে ইচ্ছা করেন কমিয়ে দেন। এখানে কুসন্তান আর সুসন্তানের কোন উল্লেখ নেই। মানুষের এমন ধারণা করা কুফরী। মেয়ে সন্তান হলে বেজার হওয়া গোনাহর কাজ। এতে মেয়ে সন্তানের কোন অমঙ্গল হব্ েনা। যে বেজার হবে অমঙ্গল তার হবে। হাদিস শরীফে এসেছে, কোন ঘরে কন্যা সন্তান জন্ম হলে সেখানে রহমাতের ফিরিস্তা নাযিল হয়। আল্লাহর রাসুল(সাঃ) বলেন, যার তিনটি কন্যা সন্তান সে আমার সাথে পাশাপাশি জান্নাতে থাকবে। যাদের জন্যে এত রহমাত তাদের জন্মের জন্যে যে বেজার হবে তার জন্যে আল্লাহর রহমাত তো হবেই না উল্টো তাদের উপর আল্লাহর অসন্তষ্টি বর্ষিত হবে। ঠেলা বোঝ।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম। মুন্সী সাহেব আমাদের মসজিদে নামাযে অনেক সময় দেখা যায় ইমাম ও মোক্তাদিরা উচ্চস্বরে আমীন বলে থাকেন এটা সঠিক কি না? দয়া করে জানাবেন । জামিরুল ইসলাম, কুমারখালী,কুষ্টিয়া।

উত্তরঃ হ্যাঁ, সঠিক। এ সম্পর্কে সহীহ হাদিসে আছে। তবে ইমামের কন্ঠস্বর থেকে যেন উচ্চে না হয়ে যায়।
প্রশ্নঃ ্ মুন্সী সাহেব আচ্ছালামু আলাইকুম। আমি পেছনে ফেলে আসা ফরজ নামাজগুলি আদায় করতে চায় তা কিভাবে আদায় করবো। জানালে উপকৃত হবো। আমজাদ বিশ্বাস,বিত্তিপাড়া,কুষ্টিয়া।
উত্তরঃ প্রশ্ন অনুসারে বোঝা যায়, নামায রেগুলার পাঁচ ওয়াক্ত পড়ার প্রতি তোমার কোন ঈমান ছিল না। আল্লাহর রাসুল(সাঃ) বলেছেন, কাফের ও ঈমানদারের মধ্যে পার্থক্য হলো নামায। তুমি ঈমান এনেছ এবং রেগুলার নামায আদায় কর। এখন থেকে এমন ভূল যেন আর না হয়। আল্লাহর কাছে এর জন্যে ক্ষমা চাইবা। আল্লাহ মাফ করবেন। সাহাবা কেরাম যাঁরা ঈমান এনেছিলেন তারা বিগত জীবনের কাযা নামায আদায় করেছেন এমন কোন হাদিস পাওয়া যায় না। তাবে নামায শুরু করার পর থেকে যদি শরয়ী কারণ বশত: কোন ওয়াক্তের নামাজ কাযা হয় তা অবশ্যই আদায় করতে হবে। পূর্বের কথা আদায় করার প্রয়োজন নেই।অধিকাংশ ফকীহদের এই মত। আবার কেউ প্রতি ওয়াক্তের সাথে বিগত জীবনের ঐ ওয়াক্তের কাযা আদায় করার প্রতি মত দিয়েছেন।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম। মুন্সী সাহেব আমাদের গ্রামে এক লোক মারা গেলে তার বাঁধানো দাঁত খুলে ফেলা হয়। এ নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের সৃষ্টি হয়। প্রশ্ন হচ্ছে মৃত ব্যক্তির স্বর্ণ বা রূপা দ্বারা বাঁধাইকৃত দাঁত মৃত্যুর পর তা খুলে দাফন করতে হবে কিনা? আব্দুস সাত্তার, সাতক্ষীরা।

উত্তরঃ কোন আল্লাহর বান্দা মারা গেলে তার বাধানো দাঁত খুলে নিলে দোষের কিছু নেই। কারণ ঐটা তার শরীরের অংশ নয়। খুলে নেয়াই ভাল তা স্বর্নের হোক আর রূপার হোক।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। মুন্সী সাহেব পৃথিবী কত দিনে সৃষ্টি হয়। পৃথিবী সৃষ্টির আগে কেমন ছিল। তছিম উদ্দিন ফকির,গাংনী,মেহেরপুর।

উত্তরঃ আল্লাহ পৃথিবী ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন (আল কোরআন)। বিজ্ঞানিরা বলেন, বায়োরীয়।

প্রশ্নঃ আচ্ছালামু আলাইকুম। আমাদের বাড়ির পাশে এক মহিলা ৫/৬ মাস গর্ভবতী ছিল। তার স্বামী স্ত্রীর পেটে আঘাত করলে ওই মহিলার পেট থেকে সন্তান প্রসব হয়ে যায়। এতে মহিলার রক্তক্ষরণ হতে থাকে। এ অবস্থায় উক্ত রক্ত নিফাস হিসেবে গণ্য হবে নাকি এস্তেহাযা? আনিছা রহমান, থানাপাড়া,কুষ্টিয়া।

উত্তরঃ যেহেতু সন্তান প্রসব হয়ে গেছে সেহেতু নিফাস হিসেবে গন্য হবে। না হলে ইস্তেহাজা হতো।

আজকের মত এখানেই শেষ করছি। আগামীতে আবার দেখা হবে ইনশাআল্লাহ।আল্লাহ হাফেজ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর